রাজশাহীতে জোড়া খুন: ৪ আসামির মধ্যে ২ জনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

November 2, 2017

jora-khunহাবিব জুয়েল ।। রাজশাহী :: পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন বা পিবিআই দাবি করছে, তারা প্রায় দেড় বছর পর, রাজশাহীর আবাসিক হোটেলে চাঞ্চল্যকর জোড়া খুনের কিনারা করতে পেরেছে। চার আসামির মধ্যে দুজন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দিয়েছে। গত ফেব্রুয়ারিতে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছিল, বোয়ালিয়া থানা পুলিশ। যেখানে তৃতীয় কোনো ব্যক্তির সংশ্লিষ্টতা না থাকায়, এটিকে আত্মহত্যা বলে উল্লেখ করা হয়েছিল। এমনকি ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসকেরও দাবি, এটা আত্মহত্যা।
২০ এপ্রিল ২০১৬, রাজশাহীর আবাসিক হোটেল নাইসের ৩০৩ নম্বর কক্ষ ভাড়া নেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মিজান ও পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সুমাইয়া। ২২ এপ্রিল দরজা ভেঙে তাদের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এই ঘটনায় দীর্ঘ ১০ মাস তদন্ত শেষে চলতি বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারি আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে পুলিশ। তাতে, তৃতীয় কোন ব্যক্তির সংশ্লিষ্টতা নেই বলে উল্লেখ করা হয়।এই প্রতিবেদনের ওপর নিহতের পরিবারের আপত্তি না থাকলেও এ বছরের ২৩ এপ্রিল আদালত স্বপ্রনোদিত হয়ে আবারও তদন্তের নির্দেশ দেন। ৬ মাস তদন্ত শেষে পিবিআই জানায়, এটি ছিল পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড, যাতে অংশ নেয় মোট চারজন।
এ ঘটনায় সম্প্রতি আটক দুইজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দিয়েছেন। তারা জানান, হোটেল নাইসের পাশের ভবনের কার্নিশ বেয়ে ঐ কক্ষে প্রবেশ করে তারা। প্রথমে মিজানকে হত্যা ও পরে সুমাইয়াকে ধর্ষণের পর হত্যা করে পালিয়ে যায় তারা।
তদন্তকারী পিবিআই কর্মকর্তার দাবি, প্রেমঘটিত প্রতিশোধ নিতেই এই হত্যাকান্ড চালানো হয়। তবে, এই ঘটনাকে পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলতে নারাজ ময়নাতদন্তকারী চিকিসক।
এদিকে হোটেল কর্তৃপক্ষের দাবি, ওইদিন সেখানে কোনো বহিরাগতের প্রবেশের ঘটনা ঘটেনি।